গর্ভাবস্থার শেষ তিন মাস বা তৃতীয় ট্রাইমেস্টার

গর্ভাবস্থার শেষ তিন মাস বা তৃতীয় ট্রাইমেস্টার

গর্ভাবস্থায় শেষ তিন মাস বা তৃতীয় ট্রাইমেস্টারে কিভাবে আপনার বাচ্চা বড় হয় ২৮তম সপ্তাহে, আপনার বাচ্চা এখন ৩৬ সে.মি. লম্বা এবং ওজন প্রায় ১১০০ গ্রাম। এর চোখের পাতা খোলা থাকে এবং এর ফুসফুস পর্যাপ্ত বৃদ্ধি পায় যাতে আপনার বাচ্চা জরায়ুর বাইরে শ্বাস নিতে পারে – যদিও এই সময় জন্ম নেয়া বাচ্চার শ্বাস নেয়ার জন্য সম্ভবত সাহায্য লাগতে পারে। ২৮তম সপ্তাহে জন্ম নেয়া একটি বাচ্চার বেচে থাকার ভালো সম্ভাবনা থাকে, কিন্তু তারপরও প্রতিবন্ধী হওয়ার একটি ঝুঁকি থেকে যায়। ৩২তম সপ্তাহে, আপনার বাচ্চা ৪১ সে.মি. লম্বা এবং ওজন প্রায় ১৮০০ গ্রাম। এই…

Read More

গর্ভাবস্থার দ্বিতীয় তিন মাস বা দ্বিতীয় ট্রাইমেস্টার

গর্ভাবস্থার দ্বিতীয় তিন মাস বা দ্বিতীয় ট্রাইমেস্টার

গর্ভাবস্থার দ্বিতীয় তিন মাস বা দ্বিতীয় ট্রাইমেস্টারে কিভাবে আপনার বাচ্চা বেড়ে উঠে ১৪তম সপ্তাহের মধ্যে আপনার বাচ্চা ১১ সে.মি. লম্বা এবং ওজন প্রায় ৪৫ গ্রাম হয়। ডিম্বাশয় বা শুক্রাশয়সহ এর অঙ্গ গঠিত হয়। যদিও আপনি তা অনুভব করতে পারছেন না কিন্ত  আপনার বাচ্চা জরায়ুর চারপাশে ঘুরে। ১৮তম সপ্তাহের মধ্যে আপনার বাচ্চা ১৮ সে.মি. লম্বা এবং ওজন প্রায় ২০০ গ্রাম হয়। পরবর্তী চার সপ্তাহে আপনি বাচ্চার নড়াচড়া বুঝতে পারবেন (পাখির ঝাপটানোর মত অনুভূতি)। এটিকে কখনও “প্রানবন্ত” হওয়া বলে। আপনি যদি আপনার বাচ্চা এখন দেখতে পারতেন তাহলে আপনি তার লিঙ্গ বলতে পারতেন।…

Read More

গর্ভাবস্থার প্রথম তিন মাস বা প্রথম ট্রাইমেস্টার

গর্ভাবস্থার প্রথম তিন মাস বা প্রথম ট্রাইমেস্টার

গর্ভাবস্থার প্রথম তিন মাসে আপনার বাচ্চা কিভাবে বৃদ্ধি পায় আপনার গর্ভাবস্থা শুরু হয় যখন আপনার ডিম্বানু(ডিম্বক) পুরুষের শুক্রাণুর সাথে নিষিক্ত হয়। এই ডিম্বানু দুইটি কোষে বিভক্ত হয়।একটি ক্ষুদ্র কোষপিন্ডে পরিণত হওয়া পর্যন্ত এই বিভক্তি চলতে থাকে। তারপর এই কোষপিন্ড জরায়ুর নালী দিয়ে জরায়ুতে (জরায়ু) গিয়ে অবস্থান করে।তারপর এটি বৃদ্ধি পায় এবং পরিণত হয়। শিশু- এই ধাপে একে ভ্রুণ বলে গর্ভফুল/প্লাসেন্টা- এটি বৃদ্ধিপ্রাপ্ত শিশুকে আপনার রক্ত থেকে পুষ্টি ও অক্সিজেন দ্বারা খাবার দেয় আম্বিলিকাল কর্ড বা নাভিরজ্জু – এটি বাচ্চাকে প্লাসেন্টার সাথে সংযুক্ত করে (এটি একটি মহাসড়কের মতো যা বাচ্চার জন্য খাদ্য…

Read More