সপ্তাহ অনুযায়ী গর্ভধারন । সপ্তাহ – ১১

সপ্তাহ অনুযায়ী গর্ভধারন । সপ্তাহ – ১১

দেড় ইঞ্চি লম্বা আর বাতাবিলেবু আকারের শিশুটির মৌলিক গঠন প্রক্রিয়া ইতিমধ্যেই সম্পন্ন হয়ে গেছে। শিশুটির শরীরের অংশটুকু এখন বাড়ছে, যাতে অতিরিক্ত বড় আকারের মাথার সাথে ভারসাম্য আসে। শিশুটির ত্বক এখনো এতই স্বচ্ছ যে তার রক্তনালীগুলোও স্পষ্ট দেখা যায়। শরীরের ছোটো ছোটো অংশ, যেমন নখ, দাঁতের মাড়ি, চুলের গোড়া ইত্যাদি এখন একটু একটু করে গঠিত হচ্ছে। এ পর্যায়ে শিশুটির জোড়া লেগে থাকা হাত পায়ের আঙ্গুল গুলো আস্তে আস্তে আলাদা হয়ে যাবে। শিশুটির ডায়াফ্রাম (Diaphragm) তৈরি হতে শুরু করবে। এটি একটি পরদা, যা বুক এবং পেট কে আলাদা করে রাখে। এ সময়…

Read More

সপ্তাহ অনুযায়ী গর্ভধারন । সপ্তাহ – ১২

সপ্তাহ অনুযায়ী গর্ভধারন । সপ্তাহ – ১২

গর্ভের শিশুটির আকার এই সপ্তাহে একটি বাওকুল (বড় বড়োই) এর সাথে তুলনা করা যাবে। এ পর্যায়ে শিশুটির দৈর্ঘ্য হবে প্রায় ৫ সেন্টিমিটার এবং তার জটিল তন্ত্র (system) গুলোও ইতিমধ্যে পুরোপুরি গঠিত হয়ে যাবে। পরবর্তী ৫ মাসে সেগুলোর বিকাশ সাধন হবে ও আকারে বাড়বে। শিশুর হাত ও পায়ের আঙ্গুল এখন ক্রমাগত খুলবে আর বন্ধ হবে এবং সে পা নাড়ানো শুরু করে দেবে। জোড়া লেগে থাকা হাত পায়ের আঙ্গুল এ সপ্তাহ নাগাদ পুরোপুরি আলাদা হয়ে যাবে। শিশুটির কিডনি ( kidney) থেকে এখন অল্প অল্প মূত্র নিঃসৃত হয়ে, যে বিশেষ তরলের মধ্যে (amniotic…

Read More

সপ্তাহ অনুযায়ী গর্ভধারন । সপ্তাহ – ১৩

সপ্তাহ অনুযায়ী গর্ভধারন । সপ্তাহ – ১৩

আপনার গর্ভের শিশুটিকে এখন একটি টম্যাটোর আকারের সাথে তুলনা করা যেতে পারে। গর্ভের শিশুটি মেয়ে হয়ে থাকলে তার ডিম্বাশয়ে ইতিমধ্যেই প্রায় ২০ লক্ষ ডিম্বানু জমা হয়ে যাবে। শিশুটির নিজস্বতার প্রতীক হিসেবে তার আঙ্গুলের ছাপও স্পষ্ট হয়ে যাবে। শিশুটির অন্ত্র (Intestine) ইতিমধ্যেই নাভির কাছ থেকে সরে তার স্থায়ী অবস্থানে চলে যাবে। এই সময় যতবার শিশুটি ঢেঁকুর তুলবে, তার ডায়াফ্রাম (পেট এবং বুকের মাঝখানের পর্দা) আরো শক্তিশালী হবে। এ সপ্তাহে আপনার শিশুর বিকাশে নতুন সংযোজন হবে ভোকাল কর্ড (শব্দ তৈরি হয় যেখান থেকে)। জন্মের পর যখন তার ক্ষুধা লাগবে, গায়ে নোংরা লাগবে…

Read More

সপ্তাহ অনুযায়ী গর্ভধারন । সপ্তাহ – ১৪

সপ্তাহ অনুযায়ী গর্ভধারন । সপ্তাহ – ১৪

এ সপ্তাহ আপনার দ্বিতীয় ট্রাইমেস্টার এর প্রথম সপ্তাহ। এটাই বেশীর ভাগ মায়ের জন্য বাকি দুটো ট্রাইমেস্টার এর চাইতে অপেক্ষাকৃত সহজ সময়। ১৪তম সপ্তাহ নাগাদ গর্ভস্থ শিশুটি একটি লেবুর আকার ধারণ করবে। তার হৃদস্পন্দন এখন খুবই শক্তিশালী হবে এবং আলট্রাসাউন্ড পরীক্ষায় স্পষ্ট শোনা যাবে। তার হৃদস্পন্দন এখন দ্রুত গতিতে চলবে, যা একজন প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তির স্বাভাবিক হৃদস্পন্দনের দ্বিগুণ। পা থেকে মাথা পর্যন্ত গর্ভস্থ শিশুটির দৈর্ঘ্য এ পর্যায়ে প্রায় ৮৫ মিলিমিটার বা ৩.৫ ইঞ্চি হবে। হৃদপিণ্ডের পাশাপাশি এই সপ্তাহ নাগাদ শিশুটির অন্যান্য অঙ্গপ্রত্যঙ্গও সক্রিয়ভাবে কাজ শুরু করবে। কিডনী (Kidney) মূত্র তৈরি করবে। লিভার…

Read More

সপ্তাহ অনুযায়ী গর্ভধারন । সপ্তাহ – ১৫

সপ্তাহ অনুযায়ী গর্ভধারন । সপ্তাহ – ১৫

গর্ভাবস্থা এর এই সপ্তাহে বাচ্চা ৯-১০ সে. মি. লম্বা হয় ও ওজন ১০০ গ্রামের মত হয়।বাচ্চার ত্বক খুবই পাতলা হয় এবং চুল উঠতে শুরু করে।কমলালেবুর আকার ধারণ করা গর্ভস্থ শিশুটি এ সপ্তাহে বেশ সক্রিয় হয়ে উঠবে। মাঝে মাঝে সে একটু ঘুমিয়ে নেবে। তারপর শক্তি পুনরুদ্ধার হয়ে গেলে বাকিটা সময় সে ক্রমাগত হাতপা নাড়বে। তার ইন্দ্রিয়গুলো এখন বিগত সপ্তাহের চাইতেও শক্তিশালী। শিশুটির অন্তঃকর্ণ ও ইতিমধ্যে গঠিত হয়ে যাবে। ফলে, আপনি যদি এখন তাকে গান শোনান, সে স্পষ্টই শুনতে পাবে। তার দৃষ্টিও বেশ ভালোভাবেই বিকশিত হয়ে যাবে এ সপ্তাহ নাগাদ। আপনি যদি…

Read More

সপ্তাহ অনুযায়ী গর্ভধারন । সপ্তাহ – ১৬

সপ্তাহ অনুযায়ী গর্ভধারন । সপ্তাহ – ১৬

গর্ভধারণের এ সপ্তাহে এসে গর্ভের শিশুটির আকার তুলনা করা যেতে পারে একটি পেয়ারার সাথে এবং এখন থেকে প্রতি সপ্তাহেই শিশুটি দ্বিগুণ হারে বাড়বে। যদিও এখনো শিশুটির চোখের পাতা খুলবেনা , তার মধ্যেও তার ভ্রু এবং চোখের পাতার লোম ঠিকই গঠিত হয়ে যাবে। শিশুটির শ্রবণযন্ত্রের কাঠামো এবং স্বাদগ্রাহী গ্রন্থিগুলোও এ সপ্তাহ নাগাদ সুগঠিত হয়ে যাবে। শিশুর পা এখন অনেক সুগঠিত। তার হৃদপিণ্ড এখন প্রতিদিন প্রায় ২৩ লিটার রক্ত পাম্প করে যা শিশুর বৃদ্ধির সাথে সাথে বাড়তে থাকবে। যদি শিশুটিকে এখন দেখা যেত তাহলে দেখা যেত সে বিভিন্ন ধরনের মুখভঙ্গি করছে। যদিও…

Read More

সপ্তাহ অনুযায়ী গর্ভধারন । সপ্তাহ – ১৭

সপ্তাহ অনুযায়ী গর্ভধারন । সপ্তাহ – ১৭

সতেরোতম সপ্তাহ থেকে গর্ভের শিশুটির বৃদ্ধি দ্রুততর হতে থাকবে। মাঝারি আকারের মূলার দৈর্ঘ্যের শিশুটি এখন বিগত সপ্তাহের চেয়ে যথেষ্ট বড় হবে এবং তার মাথা ও শরীরের অনুপাতও এখন সামঞ্জস্যপূর্ণ। এখন আর শিশুটিকে দেখে ‘অতিকায় মাথা’র জীব বলে মনে হবে না। শিশুটির কঙ্কাল ধীরে ধীরে নরম তরুণাস্থি (Cartilage) থেকে শক্ত হাড়ে পরিনত হতে থাকবে এবং নাভিরজ্জু (Umblical Cord) শক্ত ও ঘন হয়ে উঠবে। শিশুটির ওজন এখন ১৪০ গ্রাম এর মত এবং লম্বায় প্রায় ৫ ইঞ্চি। এ সময় থেকেই শিশুর নিজস্ব আঙ্গুলের ছাপ গঠিত হতে থাকে। এখন শিশুর   হৃদপিণ্ড তার মস্তিষ্ক নিয়ন্ত্রন…

Read More

সপ্তাহ অনুযায়ী গর্ভধারন । সপ্তাহ – ১৮

সপ্তাহ অনুযায়ী গর্ভধারন । সপ্তাহ – ১৮

এ সপ্তাহে আপনি অফিসিয়ালি চার মাসের গর্ভবতী। গর্ভাবস্থার এ সপ্তাহ খুবই গুরুত্বপূর্ণ কারন সাধারণত এ সময়টাতে আপনি বাচ্চার নড়াচড়া টের পেতে পারেন। এ সপ্তাহে গর্ভের শিশুর আকার হবে মোটামুটি একটা মিষ্টি আলুর মতো। শিশুটি এখন ৫.৫ ইঞ্ছির মত লম্বা এবং ওজন প্রায় ২০০ গ্রাম এর মত।এ সপ্তাহে এসে শিশুটির চেহারা অনেক বেশি স্পষ্ট হয়ে উঠবে এবং তার ভ্রু আর চোখের পাতার লোমও পুরোপুরি সুগঠিত হয়ে যাবে। ইতিমধ্যেই তার হাত ও পায়ের লোমও গজিয়ে যাবে এবং তার হাতের মুঠ আরো শক্ত হবে। এ সময় আল্ট্রাসাউন্ড পরীক্ষায় দেখা যেতে পারে শিশুটি তার…

Read More

সপ্তাহ অনুযায়ী গর্ভধারন । সপ্তাহ – ১৯

সপ্তাহ অনুযায়ী গর্ভধারন । সপ্তাহ – ১৯

গর্ভাবস্থার ১৯ তম সপ্তাহে  আমের আকার হওয়া শিশুটি প্রায় পুরোটা সময়ই ঘুমিয়ে কাটাবে। ঘুমের মধ্যেই তার বৃদ্ধি সবচেয়ে বেশি হবে, আর তার পরিপক্ক হবার জন্য প্রয়োজনীয় শক্তিও সঞ্চয় হতে থাকবে। শিশুটি কখন জেগে আছে, সেটাও আপনি বাইরে থেকেই বেশ ভালোভাবে টের পাবেন। পাঁচটি ইন্দ্রিয়ও সুগঠিত হয়ে উঠবে যার মাধ্যমে শিশুটি স্বাদ নেবে, গন্ধ শুঁকবে, শব্দ শুনবে। কিছু কিছু গবেষণা অনুযায়ী শিশুটি এখন আপনার কথা শুনতে পারে। তাই তার সাথে এখন আপনি কথা বলতে পারেন। গল্প বা গান গেয়ে শোনাতে পারেন। শিশুটির ত্বকের চারপাশে vernix caseosa নামের এক ধরনের চর্বিযুক্ত আবরন…

Read More

সপ্তাহ অনুযায়ী গর্ভধারণ । সপ্তাহ -২০

সপ্তাহ অনুযায়ী গর্ভধারণ । সপ্তাহ -২০

অভিনন্দন! গরভধারনের অর্ধেক পথ আপনি পাড়ি দিয়ে এসেছেন। ২০ তম সপ্তাহে আপনার গর্ভের শিশুটি দৈর্ঘ্যে এখন একটি কলার সমান। শিশুটি এখন ২০ সেন্টিমিটার লম্বা এবং ওজন প্রায় ৩৪০ গ্রাম। এ সময় শিশুটির চোয়ালে দাঁতের গঠন শুরু হবে। শিশুটি এখন থেকে দ্রুত বাড়তে থাকবে এবং তার মাথা আকারে ধীরে ধীরে শরীরের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ হতে থাকবে। এ সপ্তাহ নাগাদ শিশুটির স্বাদ গ্রন্থিগুলো সুগঠিত হয়ে যাবে। এখন আপনার শিশুটি মুখ দিয়ে অ্যামনিওটিক তরল গিলবে এবং বৃক্কের মাধ্যমে তা আবার পরিশোধিত হয়ে দেহ থেকে বেরও হয়ে যাবে। ত্বকের পাতলা স্তরের পাশাপাশি এই অ্যামনিওটিক তরলও শিশুটির…

Read More