অ্যানোমালি স্ক্যান কি এবং কেন করা হয় ?

অ্যানোমালি স্ক্যান

আজকাল প্রায় সব গর্ভবতী মহিলাকে তাদের গর্ভকালীন সময়ের প্রথম তিন মাস অতিক্রম করার পর আলট্রাসাউন্ড (আলট্রাসনোগ্রাম) করার পরামর্শ দেয়া হয়। এটি একটি ব্যাথামুক্ত ও গর্ভকালীন সময়ের জন্য উপযুক্ত প্রক্রিয়া। মায়ের শরীরের ভেতরে থাকা ভ্রুনের অবস্থান ও বৃদ্ধি নিরীক্ষণ করার সুবিধার্থে এ প্রক্রিয়াটি ভ্রুনের প্রতিচ্ছায়া বা ইমেজ তৈরি করে। আলট্রাসাউন্ড স্ক্যান নিরাপদ কারণ- এ প্রক্রিয়ায় রেডিও তরঙ্গের পরিবর্তে ইমেজ তৈরি করার জন্য উচ্চ কম্পাঙ্কের শব্দ তরঙ্গ ব্যাবহার করা হয়। অ্যানোমালি স্ক্যান কি? সম্প্রতি সাধারণ আলট্রাসাউন্ড স্ক্যান থেকে আরও উন্নত ও স্পষ্ট প্রতিচ্ছবি তৈরি করার পদ্ধতি আবিষ্কৃত হয়েছে এবং আমাদের দেশেও আজকাল…

Read More

গর্ভাবস্থায় প্লাসেন্টাজনিত কি কি জটিলতা দেখা দিতে পারে?

প্লাসেন্টাজনিত জটিলতা

প্লাসেন্টা বা গর্ভফুল কি? প্লাসেন্টা বা গর্ভফুল একটি ফুল আকৃতির অঙ্গ যা গর্ভাবস্থায় মায়েদের জরায়ূর ভেতরে লেগে থাকে এবং সন্তানের সাথে মায়ের যোগাযোগের মাধ্যম হিসেবে কাজ করে। এটি গর্ভের শিশুর রক্তসঞ্চালনকে মায়ের রক্তসঞ্চালন থেকে পৃথক রাখে। গর্ভের শিশুর শরীর যে সমস্ত কাজের জন্য উপযোগী হয়ে উঠে না, গর্ভফুল সে কাজগুলি তার হয়ে করে থাকে। শিশুর সাথে এটি নাড়ির মাধ্যমে সংযুক্ত থাকে। প্লাসেন্টা (গর্ভফুল) হলো মাতৃগর্ভে শিশুর সুরক্ষা বা সাপোর্ট সিস্টেম। প্লাসেন্টা কোনো কারনে ঠিকভাবে কাজ না করলে শিশুর  স্বাস্থ্যগত ঝুঁকির সম্ভাবনা বেড়ে যায়।  প্লাসেন্টা  গর্ভের সন্তানকে অক্সিজেন ও প্রয়োজনীয় পুষ্টিকর…

Read More

গর্ভাবস্থায় ভ্রমণ বা জার্নি কতটুকু নিরাপদ ?

গর্ভাবস্থায় ভ্রমণ

গর্ভাবস্থায় ভ্রমণ কি নিরাপদ? গর্ভাবস্থায় মায়ের শরীরের বিশেষ যত্ন নিতে হবে। গর্ভাবস্থায় ভ্রমণ নিষিদ্ধ না হলেও ভ্রমণকালীন সময় বিশেষ সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে যাতে মায়ের ও শিশুর শরীরের ওপর কোনো ক্ষতিকর প্রভাব না পড়ে। গর্ভাবস্থার প্রথম তিন মাস ভ্রমণ করা উচিত নয়, কারণ এ সময় গর্ভপাতের সম্ভাবনা বেশি থাকে। ঝুঁকিপূর্ণ গর্ভাবস্থায় ডাক্তাররা ভ্রমণ না করার জন্য পরামর্শ দিয়ে থাকেন। গর্ভকালীন কোন জটিলতা না থাকলে গর্ভাবস্থায় ভ্রমনে তেমন কোন বিধিনিষেধ নেই। তবে গর্ভাবস্থায় দূরে কোথাও বেড়াতে যাওয়ার আদর্শ সময় হোল দ্বিতীয় ট্রাইমেস্টার। কারণ এ সময় গর্ভপাতের ঝুঁকি অনেকটাই কমে যায়। এছাড়াও…

Read More

গর্ভাবস্থায় বাচ্চার অবস্থান কেমন হতে পারে ?

গর্ভে বাচ্চার অবস্থান

মায়ের গর্ভে বাচ্চা বেড়ে ওঠার সাথে সাথে তার নড়াচড়াও বাড়তে থাকে। আপনি তার নড়াচড়া, লাথি ছোড়া এবং মোচড়ানো অনুভব করতে পারবেন। গর্ভাবস্থার একেবারে শেষ মাসে গর্ভের বাচ্চা অনেক বড় হয়ে যায় এবং তার নড়াচড়া করার তেমন জায়গা মায়ের জরায়ুতে থাকেনা। এ সময় গর্ভে বাচ্চার অবস্থান কেমন আছে সেটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ কারণ স্বাভাবিক প্রসবের জন্য বাচ্চাকে এ সময় মায়ের জরায়ুতে যথাযথ পজিশনে থাকতে হবে। আপনার ডাক্তার এ সময় গর্ভে বাচ্চার অবস্থানের উপর নজর রাখবেন বিশেষ করে গর্ভাবস্থার শেষ মাসে। গর্ভাবস্থায় বাচ্চার অবস্থান বোঝানোর জন্য আলট্রাসাউন্ড রিপোর্টে বা ডাক্তারি পরিভাষায় কিছু শব্দ…

Read More

শিশুর কোষ্ঠকাঠিন্য । কারণ, লক্ষন ও প্রতিকার

শিশুর কোষ্ঠকাঠিন্য

প্রতিটি বাচ্চারই নতুন জিনিসের সাথে অভ্যস্থ হতে একটু সময় লাগে। সময়ের সাথে সাথে সে সব কিছুর সাথেই নিজেকে খাপ খাইয়ে নেয়। তাই বাচ্চার মা বাবাদের ব্যাপার গুলো নিয়েও খুব দুশ্চিন্তার মাঝে পড়তে হয়।বেশির ভাগ বাচ্চাদের ক্ষেত্রেই কোষ্ঠকাঠিন্য একটি সাধারণ সমস্যা। বেশি সমস্যায় পরতে হয় যখন শিশু নতুন বা শক্ত খাবার শুরু করে। শিশুদের কোষ্ঠকাঠিন্য হলে কান্নাকাটি করে, পেট মোচড়ায় এবং খাওয়াদাওয়াও কমিয়ে দেয়। অস্বস্তি হয় বলেই এমনটা করে তারা। শিশুর এই অস্বস্তি মায়েদের উৎকণ্ঠা বাড়িয়ে দেয়।স্বাভাবিক পায়খানা দুই-তিন দিন পরপর হলেও তাকে কিন্তু চিকিৎসাবিজ্ঞানে কোষ্ঠকাঠিন্য বলে না। পরপর তিন দিন…

Read More