A Story of Hope

আজকাল মানুষের স্বার্থপরতা আর প্রতারণার গল্প শুনতে শুনতে যখন আশেপাশের মানুষের উপর ভরশা হারিয়ে ফেলি, তখন খুব সাধারণ কিছু গল্প অনেক সময় আমাদের মনে করিয়ে দেয়, জগতে ভালো মানুষের সংখ্যা যতই হোক, তাদের চেতনা আর সুন্দর আচরণের সৌরভ কোনো না কোনোভাবে সমাজকে সুরভিত করে চলেছে।এরকমই খুব সাধারণ মানুষের সাধারণ একটা গল্প শেয়ার করব। গল্পটি সংগৃহীত , তবে খুবই অনুপ্রেরণা মূলক , আশা করি ভালো লাগবে।

 

একদিন ছয় বছরের এক বাচ্চা ছেলে তার চেয়ে বছর দুয়েকের ছোটো বোনকে নিয়ে সমুদ্রের ধারে বেড়াচ্ছিলো। বাবা মা বীচে বসে বিশ্রাম করছিলেন। ভাই-বোন দুজনে বিচের কাছে একটা মার্কেটের পাশে হাঁটছিল । ভাইটি হঠাৎ লক্ষ্য করলো বোন তার পাশে নেই, পিছনে ফিরে দেখলো, বোনের পিছিয়ে পড়ার কারণ একটা বাচ্চাদের খেলনার দোকান। খুকিটি দোকানে সাজিয়ে রাখা খেলনা আর পুতুল গুলোর দিকে চকচকে চোখে তাকিয়ে ছিল। তাই দেখে ভাই পিছিয়ে এসে জিজ্ঞেস করলো, ‘কি? তোমার কিছু কিনতে ইচ্ছে করছে?’, চার বছরের ছোট্ট মেয়েটি সজোরে মাথা ঝাঁকিয়ে ভাইকে একটা বড় সুন্দর পুতুল দেখালো। ছেলেটি বেশ কর্তব্যপরায়ণ বড় ভাইয়ের মত বোনের হাত ধরে দোকানে ঢুকে পুতুলটি বোনের হাতে দিলো আর দোকানীকে জিজ্ঞেস করলো ; ‘আঙ্কেল, এই পুতুলটার দাম কত ?’ দোকানে সেসময় অন্য খদ্দের ছিল না তাই দোকান মালিক খুব মজা পেয়েই ক্ষুদে বড় ভাইটির কান্ডকীর্তি অবলোকন করছিলেন। ভাই এর প্রশ্নের জবাবে তিনি একটু ঘুরিয়ে উত্তর দিলেন, ‘তুমি কত দিতে পারবে সেটাই শুনি?’ ছেলেটি পকেটে হাত দিয়ে বেশ কিছু ঝিনুক বের করলো, যেগুলো বালুকাবেলা থেকে সে সংগ্রহ করেছিলো । ‘এগুলো দিলে হবে না?’ –এবার কিছুটা উদ্বিগ্ন হয়ে প্রশ্ন করলো ছেলেটি। দোকান মালিক একটু হেসে “আরে, না না, এখানে তো অনেক বেশী আছে” বলে শুধু চারটি ঝিনুক তুলে নিয়ে বাকি গুলো তাকে ফেরত দিয়ে দিলেন। পুতুল পেয়ে আনন্দে বোনটির চোখমুখ ঝলমল করছিলো, আর কিনে দিতে পেরে ভাইটির।

 

ওরা বেরিয়ে যাওয়ার পর দোকানের সহকারী ছেলেটি মালিককে অবাক হয়ে জিজ্ঞেস করলো, ‘স্যর, আপনি এত বড় একটা পুতুল সামান্য কয়েকটা কড়ি দিয়ে দিয়ে দিলেন? কড়ির তো কোন মূল্য নেই!’ দোকান মালিক স্মিত হেসে বললেন, ‘কড়ির মুল্য আমাদের কাছে না থাকলেও ওই বাচ্চা ছেলেটির কাছে আছে- টাকার মুল্য সে আজ বোঝে না, কিন্তু একদিন বুঝবে। আর অবধারিতভাবেই আজকের দিনটির কথা তার মনে পড়বে, কারণ টাকার পরিবর্তে সমুদ্রের বালুকাবেলা থেকে কুড়ানো কিছু কড়ি দিয়ে সে তার ছোট বোনের জন্য একটি পুতুল কিনেছিলো। আর এ ভাবনাটি তাকেও উদ্বুদ্ধ করবে কারো জন্য এরকমই কিছু একটা করার জন্য” আমরা পৃথিবীতে যখন নিস্বার্থভাবে ভালো কিছু করি, তখন সেটি কারো না কারো মাধ্যমে , কোন না কোন ভাবে ছড়িয়ে পড়ে । কারো প্রতি নিষ্ঠুরতাও ঠিক তেমনি। অন্যের প্রতি করা কৃতকর্ম আবার আমাদের কাছেই ফিরে আসে, হয়তো আমরা ঠিক যেভাবে চাই বা ভাবি সেভাবে না, তবে ফিরে আসেই । পৃথিবীতে দয়া, সৌহার্দ কিংবা ঘৃণা ছড়ায় মানুষেরই মাধ্যমে, তাই আমরা মানুষেরা এক একজন অনেক শক্তির অধিকারী । এই পৃথিবীর প্রতি আমাদের দায়িত্বও অনেকটুকু।

আসুন, আমাদের নতুন প্রজন্মের সাথে/ সামনে সুন্দর আচরণ করি, তাদের শেখাই পৃথিবীটা মায়া মমতা ভালবাসার-

সবার জন্য শুভকামনা।

Fairyland

 

আরও পড়ুন ঃ

Related posts

Leave a Comment