বাচ্চা কোন বয়স থেকে বসতে শেখে?

মেঝে জুড়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে খেলনা… হ্যা নিঃসন্দেহে এটা খুবই ভালো; তবে আপনার বাচ্চা কি নিজে থেকেই সোজা হয়ে বসে দুই হাত দিয়ে খেলছে বা খেলতে পারে? যদি তাই হয় তাহলে তো সোনায় সোহাগা।

বেশ কয়েকমাস চিৎ হয়ে এবং পেটের উপর ভর দিয়ে শুয়ে কাটানোর পর আপনার বাচ্চা হয়তো কিছু পরিবর্তনের জন্য প্রস্তুত হয়ে যাবে। বাচ্চার বয়স যখন অথবা ৪ মাস তখন থেকে ( অথবা যখন ও নিজের মাথাটাকে সোজা করে রাখতে শিখবে) তাকে মাঝে মাঝে সাপোর্ট দিয়ে বসতে দেয়া হলে সে তার চারপাশের দুনিয়া সম্পর্কে আরও বেশি কৌতূহলী ও আগ্রহী হয়ে উঠবে। 

যত বেশি আপনার বাচ্চাকে এভাবে সাপোর্ট দিয়ে সোজা করে বসানোর অভ্যাস করাবেন তত তাড়াতাড়ি সে নিজে নিজে বসা শিখবে। এর সাথে সাথে ওর পছন্দের খেলনাগুলো এবং পছন্দের মানুষগুলো সম্পর্কে ওর আগ্রহ বৃদ্ধি পেতে থাকবে।

কখন থেকে বাচ্চারা বসা শুরু করবে?  

এটা প্রতিটা বাচ্চার ক্ষেত্রেই ভিন্ন হতে পারে। তবে বেশিরভাগ বাচ্চাই ৩ থেকে ৫ মাস বয়সে কোন কিছু সাপোর্টে বসতে শিখে, হোক তা নিজের হাতে ভর দিয়ে, অথবা মা-বাবা কিংবা চেয়ারের সাহায্য নিয়ে।

আপনার সন্তান যখন ৬ মাস বয়সী হয়ে যাবে, তখন ওর শরীরের উপরের অংশ, ঘাড় সমেত গলা এবং তার পিঠের পেশী শক্তিশালী হবে, যা ব্যবহার করে কোন কিছুর সাহায্য ছাড়াই বসতে পারবে। অবশ্য, কিছু কিছু শিশুর ক্ষেত্রে ৯ মাস পর্যন্ত সময় লেগে যেতে পারে (বিশেষ করে সে সমস্ত শিশুদের যাদেরকে বেশীরভাগ সময়ই শুইয়ে রাখা হয় বা ক্যারিয়ারে বসিয়ে রাখা হয়)।

৭ মাস বয়স থেকেই বাচ্চা নিজে নিজে বসার পজিশনে আসতে চেষ্টা করবে, তবে বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই ১১ মাস বয়সের আগ অবধি বাচ্চাদের টেনে ধরে বসিয়ে দিতে হয় ।

আপনার বাচ্চার বসতে শুরু করার লক্ষণ

৪ মাস বয়স থেকেই বাচ্চাকে সোজা করে কোলে নেয়া হলে বা দাঁড় করানো হলে সে তার মাথা স্থির রাখতে পারে কিন্তু বেশিরভাগ বাচ্চাকেই এ সময় বসার ভঙ্গিতে রাখা হলে তার মাথা পেছনের দিকে হেলে পড়তে পারে। তাই আপনার বাচ্চার ঘাড়কে শক্ত এবং মাথাকে নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য ওকে উঠিয়ে বসানো সংক্রান্ত খেলা আপনি ওর সাথে খেলতে পারেন।

বাচ্চাকে চিৎ করে বিছানায় বা আপনার পায়ের উপর শুইয়ে দিন। এর পর তার দু হাত ধরে ধীরে ধীরে তাকে টেনে বসিয়ে দিন- সাথে চেহারাতে বিভিন্ন অঙ্গভঙ্গি করে কিংবা অদ্ভুত সব শব্দ করে ওকে হাসিখুশী রাখতে পারেন।

কীভাবে আমি আমার বাচ্চাকে বসতে সাহায্য করতে পারি?

যখন থেকে বাচ্চা তার মাথা সোজা এবং স্থির রাখতে পারবে তখন থেকেই আপনি তাকে শিশুদের চেয়ার, স্ট্রলার বা আপনার কোলে বসার অভ্যাস করানো শুরু করতে পারেন। কোন কিছুর সাপোর্ট দিয়ে তাকে স্ট্রলারে বসিয়ে কাছাকাছি  কোন জায়গা থেকে ঘুরে আসতে পারেন। এতে বসার প্রতি ওর আগ্রহ বৃদ্ধি পাবে কারণ এভাবে স্ট্রলারে বসে সে অনেক নতুন কিছু দেখতে পাবে এবং নতুন আঙ্গিকে দুনিয়াটাকে উপলব্ধি করতে পারবে।

আপনার বাচ্চা যত বেশী সাহায্য নিয়ে বসবে, ঠিক তত বেশীই বালিশ অথবা বাবা-মায়ের সাহায্য ছাড়াই বসার চেষ্টা করতে থাকবে। যখন থেকে ও নিজে থেকে বসা শুরু করবে, আপনি ওকে কম্বল কিংবা গদি অথবা ওর চারপাশে কুশন দিয়ে বসিয়ে রাখবেন যাতে পড়ে গেলেও ব্যথা না পায়, এবং অবশ্যই আপনি ওর পাশেই থাকবেন যাতে করে যদি মাথার ভারে পেছন দিকে পড়ে যেতে নেয় আপনি যেন ধরতে পারেন। ওর টলমলে ভারসাম্যে সামঞ্জস্যতা আনার জন্যে, যখন আপনি ওর পাশে বসে থাকবেন তখন বল গড়িয়ে দেয়া বা ছুঁড়ে দেয়ার খেলা, কিংবা ওর হাত ধরে সুরের তালে তালে হাত দুলিয়ে ছড়া এবং গান শোনাতে পারেন।

শিশুকে বসতে শেখানোর জন্য, তার পা দুটো ছড়িয়ে রাখুন যাতে ওর শরীরের ওজনের ভারসাম্য থাকে৷ এটা তার উল্টে পড়ার ভয় কমিয়ে দেয়। বাচ্চা যখন বসে থাকবে তখন তার পায়ের ঠিক সামনে তার পছন্দের খেলনা রেখে দিন। সে হাত বাড়িয়ে খেলনাটা নেয়ার চেষ্টা করবে। এভাবে সে হয়তো কিছু সময় হাতের উপর ভর দিয়ে নিজে থেকে বসে থাকবে।

এছাড়াও বাচ্চার পায়ের কাছে তার প্রিয় খেলনা ধরে সেদিকে তার মনোযোগ আকর্ষণ করুন। এর পর খেলনাটি ধীরে ধীরে তার চোখের উচ্চতায় উপরে তুলুন। সে খেলনাটি ধরার জন্য সামনের দিকে ঝুঁকতে চাইবে। এভাবে হয়তো দেখা যাবে সে কিছুক্ষণ সময় কোন সাহায্য ছাড়ায় নিজে নিজে বসে থাকতে পারবে।

এছাড়া আপনার শিশুকে পেটে ভর দিয়ে খেলতেও উৎসাহিত করতে পারেন৷ একটা খেলনা দেখার জন্য আপনার শিশুকে যে মাথা ও বুক উপরদিকে তুলে রাখতে হবে তাতে ওর ঘাড়ের মাংসপেশী মজবুত হবে এবং বসে থাকার জন্য তার মাথার ভার সামলানোর ক্ষমতারও বিকাশ হবে৷

তবে, যদি দেখেন সে বসা অবস্থায় তেমন আনন্দ পাচ্ছে না, তাহলে এই চেষ্টা কিছুদিন পর করুন।

কখন দুশ্চিন্তা করবেন না

আপনি যত বেশী ওকে বসার অনুশীলন করার সুযোগ দিবেন ও তত বেশী আপনাকে জানিয়ে দিবে আসলে ও নিজে থেকে বসার জন্যে একদম প্রস্তুত কিনা!

সাপোর্ট দিয়ে বসিয়ে দেয়ার পরও সে যদি সামনের দিকে ঝুঁকে পরে বা কাত হয়ে যায় তবে বুঝতে হবে সে এখনো বসার জন্য প্রস্তুত নয়। আর বাচ্চারা যারা নতুন নতুন বসতে শিখে ওরা খুব দ্রুতই ক্লান্ত হয়ে পড়ে – অবশ্য ও তা বুঝিয়ে দিবে আপনাকে কেননা ক্লান্ত হয়ে গেলে ও কান্না করবে, হইচই করবে কিংবা খিটখিটে আচরণ করবে। 

৫ মাস পার হয়ে যাওয়ার পরও যদি আপনার সন্তান সাহায্য ছাড়া বসতে না পারে, তাহলে এটা কোন উদ্বেগ বা চিন্তার বিষয় নয়। প্রত্যেকটা বাচ্চাই ভিন্নভাবে বড় হয় এবং ওদের বেড়ে উঠার গতিও হয় ভিন্ন রকমেরই। কিছু কিছু বাচ্চা হয়তো ৪ মাস বয়সেই বসতে শুরু করে আবার দেখা যায় কিছু কিছু বাচ্চা ৯ মাসেও বসতে শিখে না।

আপনার কাজ হবে সাপোর্ট দিয়ে তাকে বসার অভ্যাস করানো এবং অনেক বেশী উৎসাহ এবং অনুপ্রেরণামূলক কাজ করতে হবে ওর জন্য (এই যেমন ধরুন ওর বসার সিটটাকে আয়নার সামনে রাখতে পারেন, অথবা স্ট্রলারে বসিয়ে বেশ কিছুদূর হাঁটাহাঁটি করতে পারেন), এতে করে এই ব্যাপারটায় ও অভ্যস্ত হতে পারবে এবং এভাবেই ওর দক্ষতা বৃদ্ধি পাবে।

বসতে পারার পরের ধাপটা কি?

পেটের উপর উপুড় হয়ে শুয়ে থাকা এবং অনেক অনুশীলনের ফলে বসার প্রক্রিয়াটা রপ্ত করার মধ্য দিয়ে ওর শারীরিক দক্ষতা বৃদ্ধি পাবে এবং হামাগুড়ি দিতে শিখবে এবং একটা পর্যায়ে দাঁড়াতেও শিখবে – এবং এই অভ্যাসটাই ওকে প্রথমবারের মতো হাঁটতে আগ্রহী করে তুলবে।

শিশুর অন্যান্য মাইলস্টোনগুলো সম্পর্কে পড়ুন-

বাচ্চা কোন বয়স থেকে উপুড় হতে বা গড়াতে শেখে?

বাচ্চা কোন বয়স থেকে হামাগুড়ি দেয়া শুরু করে?

বাচ্চা কোন বয়স থেকে দাঁড়াতে শেখে?

শিশুর হাঁটতে শেখা

সবার জন্য শুভকামনা।

Related posts

Leave a Comment

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.