শিশুর প্রথম খাবার হিসেবে ওটস (Oats): কিছু রেসিপি

আপনার শিশুর প্রথম সলিড হিসেবে ওটস অনন্য-অসাধারন একটি খাবার, শিশুর পাঁচ মাস কিংবা ছয় মাসের শুরুর দিকেই আপনি ওটস ট্রাই করে দেখতে পারেন। বাজারে বাচ্চাদের খাবার হিসেবে যেসব টিন-জাত প্রসেসড ওট-মিল পাওয়া যায় সেগুলো এবং সহজে রান্না করা যায় এমন ওটস কিংবা ওটমিল (oatmeal) পরিহার করাই উত্তম, কারণ এগুলোয় পুষ্টিগুন তেমন কিছুই অবশিষ্ট থাকে না। সবচেয়ে ভালো হয় রোলড ওটস কিংবা স্টিল-কাট ওটস পাওয়া গেলে। আজকাল আমাদের দেশে অনেক সুপার-শপ রোলড ওটস আমদানি করছে।

রোলড ওটস কিছুটা গোটা গোটা থাকার পুরোপুরি রান্না হতে ১৫ থেকে ২০ মিনিট সময় নেয়। আপনি সুবিধার জন্য ওটস গ্রাউন্ড/ চুর্ন করে নিতে পারেন, তবে চুর্ন করে বেশিদিনের জন্য সংরক্ষণ করবেন না, এতে পুষ্টিগুন কমে যায় , এবং দ্রুত নষ্ট হয়ে যেতে পারে।

নিচে ওটস দিয়ে প্রস্তুতকৃত কিছু রেসিপি দেয়া হোল-

রেসিপি ১

বাচ্চাকে প্রথমেই শুধু ওটস দিয়ে দেখুন, ওটস যদিও পরিপাক সহায়ক তবু যেহেতু প্রথম খাবার, তাই খাওয়ানোর পর দু-একদিন প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করুন।

এক কাপ পানিতে এক টেবিল চামচ রোলড ওটস কিছুক্ষন ভিজিয়ে রাখুন, মৃদু আঁচে ১৫ থেকে ২০ মিনিট রান্না করুন। ফুটে উঠলে মাঝে মাঝে একটু নেড়ে  দেবেন। প্রথম খাবার হিসেবে দিলে ওটস গুঁড়ো করে নিতে পারেন, এতে রান্না খুব তাড়াতাড়ি হয় আর বেশ নরম হবে, বাচ্চার খেতে সুবিধা হবে। আর গুঁড়ো করে না নিলে, প্যান থেকে নামানোর পর একটু ব্লেন্ড কিংবা ম্যাশ(ভর্তা) করে নেবেন।

** বাচ্চার প্রথম খাবারে কখনই স্বাদের জন্য লবন, চিনি, মিছরি ইত্যাদি ব্যবহার করবেন না, এতে বাচ্চার স্বাস্থ্য –ঝুঁকি রয়েছে এবং ভালো খাদ্যাভ্যাস গড়ে উঠতে বাধা দেয়। মনে রাখবেন, মায়ের দুধ বাচ্চারা খুব আগ্রহ করেই খায় যেটি একপ্রকার স্বাদহীন খাবার। তাই প্রথমেই তাকে বয়সোপোযোগি যা খাবারই দেবেন সে তাতেই অভ্যস্থ হবে।

যদি ওটস খাইয়ে কোনো পার্শপ্রতিক্রিয়া লক্ষ্য না করেন, পরবর্তী দিনগুলোতে নিচের রেচিপিগুলো ট্রাই করে দেখতে পারেন।

রেসিপি ২

এক কাপ পানিতে এক টেবিল চামচ ওটস (rolled oats) কিছুক্ষন ভিজিয়ে রাখুন।

১০০ গ্রাম মিষ্টি আলু এবং ১০০ গ্রাম মিষ্টি কুমড়ো ভালোভাবে খোসা ছাড়িয়ে , ধুয়ে নিয়ে টুকরো কিংবা গ্রেইট করে ওটসের সাথে সেদ্ধ করে ফেলুন। সময় ১৫ থেকে ২০ মিনিট, মৃদু আঁচে। এরপর ব্লেন্ড /কিংবা ম্যাশ (ভর্তা) করে সোনামনিকে অফার করুন তার জীবনের প্রথম ডেসার্ট ।  মিষ্টি আলু এবং মিষ্টি কুমড়ো দুটোই শিশুদের জন্য ভীষণ পুষ্টিকর , আপনারা চাইলে যেকোনো একটি সবজিও ব্যাবহার করতে পারেন।

রেসিপি ৩

সবজি তো হোলো। এবার আসি একটু ফলের তৈরি ডেসার্টে

রোলড ওটস এক টেবিল চামচ এক কাপ পানিতে ভিজিয়ে রেখে মৃদু আঁচে ১৫ থেকে ২০ মিনিট ফুটিয়ে রান্না করে ওট-মিল তৈরি করে নিন ।

পাকা কলা ভালো করে ধুয়ে নিন। খোসা ছাড়িয়ে অর্ধেকটা (মাঝারি সাইযের বাংলা কলা)বাটিতে নিন। এবার প্রয়োজনমতো ওট-মিল নিয়ে তাতে কলা দিয়ে ব্লেড/ম্যাশ করে বানিয়ে ফেলুন ওট-কাস্টার্ড , একে আরো লোভনীয় করতে যোগ করতে পারেন বুকের দুধ কিংবা ফর্মুলা।

**(বাচ্চাদের খাবার ম্যাশ করার বাটি পাওয়া যায় আজকাল, বাটি আর ম্যাশার দিয়ে সহজেই খাবার ম্যাশ করে নেয়া যায়। অথবা চামচ দিয়ে মিহি করে ভর্তা করতে পারেন।)

একই রেসিপিতে কলার পরিবর্তে পাকা পেঁপেও (অবশ্যই ক্যামিকেলমুক্ত) যোগ করতে পারেন।

রেসিপি ৪

রোলড ওটস এক টেবিল চামচ এক কাপ পানিতে ভিজিয়ে রেখে মৃদু আঁচে ১৫ থেকে ২০ মিনিট ফুটিয়ে রান্না করে ওট-মিল তৈরি করে নিন ।

অর্ধেকটা খোসা ছাড়ানো আপেল(ছোট সাইযের) ভালো করে ধুয়ে নিন। আলাদা পাত্রে এক কাপ পানিতে কয়েক মিনিট ফুটিয়ে নিন। আপেল যেন মিষ্টি হয়, টক বাচ্চারা খেতে চায় না, আর এতো ছোট বাচ্চাকে টক জাতীয় কিছু না দেয়াই ভালো।

এবার প্রয়োজনমতো ওট-মিল নিয়ে তাতে সেদ্ধ আপেল গুলো দিয়ে ব্লেড/ম্যাশ করে বানিয়ে ফেলুন ওট-কাস্টার্ড-২ , একে আরো লোভনীয় করতে যোগ করতে পারেন বুকের দুধ কিংবা ফর্মুলা।  

 (বাচ্চার ম্যাশ করার বাটি পাওয়া যায় আজকাল, বাটি আর ম্যাশার দিয়ে সহজেই খাবার ম্যাশ করে নেয়া যায়। অথবা চামচ দিয়ে মিহি করে ভর্তা করতে পারেন।)

সবার জন্য শুভকামনা।

লেখাটি fairyland parents এর নিজস্ব লেখা। অনুমতি ব্যাতিত কপি করা নিষেধ।   

Related posts