গর্ভাবস্থায় নাক দিয়ে রক্ত পড়া। কারণ ও প্রতিকার

গর্ভাবস্থায় নাক থেকে রক্ত কেন পড়ে? 

নাক দিয়ে রক্ত পড়া খুব সাধারণ একটি সমস্যা না হলেও অনেকের ক্ষেত্রেই হয়ে থাকে। আমাদের দেহের নাকের ভিতরের রক্ত প্রবাহের নালীটি খুবই ক্ষুদ্র এবং নাক দেহের সবচেয়ে বেশি সেনসেটিভ অঙ্গ। যখনই নাকের এই রক্ত প্রবাহের নালীতে কোন সমস্যা দেখা দেয় তখনই নাক দিয়ে রক্ত পড়ে, মাঝে মাঝে নাকের দুটো ছিদ্র দিয়েই রক্ত বের হয়ে থাকে।

গর্ভাবস্থায় আমাদের শরীরে রক্তপ্রবাহ বৃদ্ধি পায়। এ সময় নাকের ভেতরের রক্তনালীগুলো প্রসারিত হয়ে যায় এবং বর্ধিত রক্তপ্রবাহ নাকের সংবেদনশীল রক্তনালীগুলোর উপর অতিরিক্ত চাপ ফেলে যার ফলে নালীগুলো সহজে ফেটে যেতে পারে। এই কারণে গর্ভাবস্থায় নাক থেকে রক্ত পড়া স্বাভাবিক। এ সময় প্রায় ২০ ভাগ মহিলাদের এমনটা হতে পারে। মাঝে মাঝে নাক থেকে রক্ত পড়া তেমন কোন ভয়ের কারণ নয়।

এছারাও গর্ভাবস্থায় ঠাণ্ডা লাগলে, সাইনাসের ইনফেকশন হলে বা অ্যালার্জির কারণে নাকের ভেতরের মেমব্রেনগুলো শুকিয়ে যেতে পারে। শীতকালে, শীততাপ নিয়ন্ত্রিত কক্ষেও এমন হতে পারে যার ফলে নাক থেকে রক্তপাত হতে পারে।

মাঝে মাঝে আঘাত পাওয়ার কারণে বা কোন মেডিকেল কন্ডিশন থাকলে যেমন- উচ্চ রক্তচাপ বা রক্ত জমাট বাঁধার সমস্যার কারণেও নাক থেকে রক্তপাত হতে পারে।

গর্ভাবস্থায় নাক থেকে রক্ত পড়লে কি করতে হবে?

গর্ভাবস্থায় নাক দিয়ে রক্ত পড়া শুরু হলে নিচের পদ্ধতিগুল চেষ্টা করতে পারেন-

নাক দিয়ে রক্ত পড়লে সোজা হয়ে একটু সামনের দিকে ঝুঁকে চেয়ারে বসে পড়ুন। মাথা হৃৎপিণ্ডের নিচের লেভেলে আনবেন না। এতে আবার রক্ত পড়া শুরু হতে পারে।বৃদ্ধাঙ্গুল ও তর্জনী দিয়ে নাকের দুই ছিদ্র জোরে বন্ধ করুন।নাকের ওপরের দিকে যে শক্ত হাড় আছে, তার ঠিক নিচেই রয়েছে নরম তরুণাস্থি। ঠিক এ জায়গাটাতেই জোরে চেপে ধরতে হবে যেন পর্দার নিচের লিটলস এরিয়ার ধমনিতে রক্ত সরবাহ বন্ধ হয়।এভাবে ৫ থেকে ১৫ মিনিট ধরে রাখুন।মুখ দিয়ে শ্বাস নিন। এ সময় আঙুল ছাড়বেন না, প্রয়োজন হলে আরও বেশিক্ষণ চাপ দিয়ে ধরে রাখুন। এ সময় সম্ভব হলে কপালে, নাকের চারপাশে বরফ ধরে রাখুন। তাহলে রক্ত পড়া তাড়াতাড়ি বন্ধ হবে।

রক্ত পড়াকালে শোবেন না, মাথা পেছনে হেলাবেন না বা মাথা উঁচু করে নাক দিয়ে নিঃশ্বাস টানবেন না। এতে রক্ত নাক থেকে গলায় চলে যাবে এবং পরে পেটে। এই রক্ত শ্বাসনালিতে চলে যাওয়ারও ঝুঁকি আছে। এতে রক্ত ফুসফুসে গিয়ে জটিল সমস্যা করতে পারে। এতে রক্ত গিলে ফেলতে পারেন এবং বমি আসতে পারে। রক্ত পড়া বন্ধ হলেও কয়েক ঘণ্টা নাক পরিষ্কার করবেন না।

কখন ডাক্তারের কাছে যেতে হবে?

গর্ভাবস্থায় যদি ঘন ঘন নাক দিয়ে রক্ত পরে তবে তা ডাক্তারকে জানাতে হবে। তিনি চেক করে দেখবেন আর কোন সমস্যা আছে কিনা। কিছু কিছু ক্ষেত্রে গর্ভাবস্থায় নাকে থেকে রক্ত পড়লে দ্রুত ডাক্তারের কাছে যেতে হবে। এগুলো হলো-

  • নাক চাপ দিয়ে ধরে রাখার ৩০ মিনিট পরও যদি রক্ত বন্ধ না হয়।
  • রক্তপাতের পরিমান যদি বেশী হয়।
  • রক্তপাতের কারণে যদি নিঃশ্বাস নিতে কষ্ট হয়।
  • যদি মাথায় কোন আঘাত লাগার কারণে রক্তপাত হয়। রক্তপাতের পরিমান খুব অল্প হলেও।
  • রক্তপাতের কারণে ক্লান্ত লাগা, মাথা ঘুরানো বা এলোমেলো বোধ হলে।
  • ফ্যাকাসে হয়ে গেলে।
  • বুকে ব্যাথা হলে।
  • উচ্চ রক্তচাপ থাকলে।

গর্ভাবস্থায় নাক থেকে রক্ত পড়া প্রতিরোধে কি করা যেতে পারে?

  • নাকের মিউকাস মেমব্রেনগুলো হাইড্রেটেদ রাখার জন্য পর্যাপ্ত পানি পান করুন।
  • নাক ঝারতে হলে আস্তে ঝারুন। জোরে নাক ঝারার কারণে রক্তপাত শুরু হতে পারে।
  • হাঁচি দেয়ার সময় মুখ খোলা রাখার চেষ্টা করুন। এতে নাকের উপর থেকে হাঁচির চাপ কমে যায়।
  • নাকে শুকিয়ে যাওয়া প্রতিরোধ করতে পেট্রোলিয়াম জেলি ব্যাবহার করতে পারেন। নাকের স্যালাইন ড্রপ বা স্প্রেও ব্যাবহার করা যেতে পারে।
  • যদি ডাক্তার কোন ন্যাসাল স্প্রে বা ডিকনজেস্টেন্ট ব্যাবহার করতে বলেন তবে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী ব্যাবহার করুন। এগুলোর কারণে নাক আরও শুকিয়ে যেতে পারে।

সবার জন্য শুভকামনা।

Related posts

Leave a Comment